মন্ত্রী হওয়া সত্ত্বেও টুইটে কেন ‘মাননীয়’ বলেনি কলকাতা পুলিশ,বললেন বাবুল

মন্ত্রী হওয়া সত্ত্বেও টুইটে কেন ‘মাননীয়’ বলেনি কলকাতা পুলিশ,বললেন বাবুল

তিনি মন্ত্রী। অথচ তাঁকে মাননীয় বলা হয়নি কেন? তা নিয়ে কলকাতা পুলিশের উপর বেজায় চটলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। পুলিশকে রীতিমতো সৌজন্যতার পাঠ পড়ালেন তিনি।

ঘটনাটি ঠিক কী? এম আর বাঙ্গুরের সেই ভাইরাল ভিডিয়োয় যে ব্যক্তির গলা শোনা গিয়েছিল, তাঁর বিরুদ্ধে পুলিশ অভিযোগ দায়ের করেছে বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করা হয়েছিল। বুধবার একটি স্ক্রিনশট টুইট করে বাবুল জানতে চান, সোমনাথ দাস (ভিডিয়োর ব্যক্তির নাম) বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে কিনা?

বাবুলের প্রশ্নের জবাবে কলকাতা পুলিশের তরফে একটি টুইটবার্তায় বলা হয়, ‘বাবুল সুপ্রিয়ের টুইটটি সম্পূর্ণ সঠিক নয় ও ভুল তথ্য। সোমনাথ দাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেনি কলকাতা পুলিশ।’

কিন্তু বাবুল জানান, কলকাতা পুলিশকে বিশ্বাস করার কোনও যুক্তি নেই। কারণ দীর্ঘদিন ধরেই পুলিশ তৃণমূল কংগ্রেসের ‘দলদাস’-এ পরিণত হয়েছে। আসানসোলের বিজেপি সাংসদ বলেন, ‘বিষয়টি ভালো যে আপনারা একটি বিবৃতি দিয়েছেন।


যখন আমরা সারা দেশের পুলিশ বাহিনীর কাজের প্রশংসা করছি ও আপনাদের নিঃস্বার্থ পরিষেবাকে শ্রদ্ধা করছি, আপনাদের বিশ্বাস করার কোনও কারণ নেই। কেন আমি এটা বলছি জানতে চাইলে নিজেদের নথিভুক্ত টিএমসি দলদাস ইতিহাসে উত্তর খুঁজুন।’

সেই পর্যন্ত ঠিক ছিল। কিন্তু এরপরই ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন বাবুল। টুইটে মন্ত্রীকে মাননীয় বলা হয়নি কেন, তা নিয়ে কলকাতা পুলিশকে সৌজন্যতার পাঠ পড়ান তিনি।

তিনি বলেন, ‘বাই দ্য ওয়ে, আমি যেমন শিষ্টাচারের নিজস্ব ধারণার পরিচয় দিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীকে শুধু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নয়, মাননীয় হিসেবে উল্লেখ করেছি, তেমনই মন্ত্রীদের মাননীয় হিসেবে উল্লেখ করা উচিত আপনাদের। তা সে আপনারা মনে করুন বা মনে না করুন সেই মন্ত্রী মাননীয় কিনা। আমার মনে হয় না, দিদি পশ্চিমবঙ্গের জন্য কোনও সম্মানীয় কাজ করছেন। তাও তিনি মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী।’