দেশিয় বিমান ভ্রমণের নতুন নিয়ম প্রকাশ্যে এলো দেখে নিন এক নজরে

দেশিয় বিমান ভ্রমণের নতুন নিয়ম প্রকাশ্যে এলো দেখে নিন এক নজরে

লকডাউন চলাকালীন দেশিয় বিমান ভ্রমণের নতুন নিয়ম সরকার আজ প্রকাশ করেছে। নয়া নির্দেশিকায় যাত্রীদের নিজেদের মোবাইলে আরোগ্য সেতু অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে ।
National flights New Guidelines
এছাড়া রাজ্যগুলিকে বিমানবন্দর, রেল স্টেশন এবং বাস টার্মিনালের প্রস্থানস্থলে থার্মাল স্ক্রিনিং নিশ্চিত করতেও বলা হয়েছে। নির্দেশিকাটি নাগরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী শেয়ার করেছেন।


মন্ত্রী সম্প্রতি জানিয়েছিলেন যে COVID-19 ভাইরাসের ‘ভবিষ্যতে গতিপ্রকৃতি’ বোঝা গেলে জুনের মাঝামাঝি বা জুলাইয়ের শেষের দিকে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল শুরু হতে পারে।

করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া রুখতে জারি লকডাউনের প্রায় দুই মাস পরে বিমান চলাচল শুরুর ঠিক একদিন আগে এই নির্দেশিকা প্রকাশিত হয়েছে।

মাস্ক ব্যবহার এবং হাত স্যানিটাইজ করা বাধ্যতামূলক

বোর্ডিং এবং ভ্রমণের সময়, সমস্ত যাত্রী মুখের মাস্ক ব্যবহার করবেন এবং হাতের স্বাস্থ্যবিধি, শ্বাস প্রশ্বাসের স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করবেন এবং পরিবেশগত স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখবেন, নির্দেশিকাতে বলা হয়েছে।

বিমানবন্দর, রেলস্টেশন এবং বাস টার্মিনালগুলিতে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও নির্দেশিকায় বলা হয়েছে।

বিমানবন্দর, রেলস্টেশন এবং বাস টার্মিনাল স্যানিটাইজ করতে হবে

বিমানবন্দর, রেলস্টেশন এবং বাস টার্মিনালগুলিকে নিয়মিত স্যানিটাইজ বা জীবাণুমুক্ত করতে হবে এবং সাবান এবং স্যানিটাইজারের সহজলভ্যতা নিশ্চিত কররতে হবে বলে স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে।

প্রস্থানের জায়গায় থার্মাল স্ক্রিনিংয়ের ব্যবস্থা করা হবে এবং উপসর্গহীন যাত্রীরা নিজেদের ১৪ দিন হোম কোয়ারান্টাইনে রাখবে এবং নিজেদের স্বাস্থ্যের উপর নজরদারি রাখবে এই শর্তে বাড়ি যেতে দেওয়া হবে, বলা হয়েছে নির্দেশিকায়।

Loader Loading...
EAD Logo Taking too long?

Reload Reload document
| Open Open in new tab

Download


“যদি তাদের কোনও লক্ষণ দেখা দেয় তবে তারা জেলা নজরদারি অফিসারকে বা রাজ্য / জাতীয় কল সেন্টারকে (১০৭৫) অবহিত করবেন,” লেখা রয়েছে নির্দেশিকায়।
Loader Loading...
EAD Logo Taking too long?

Reload Reload document
| Open Open in new tab

Download

উপসর্গহীন যাত্রীদের বিমানে বা অন্য মাধ্যমে উঠতে দেওয়া হবে

হালকা লক্ষণ রয়েছে যাদের তাদের আইসিএমআর প্রোটোকল অনুযায়ী উপযুক্ত এবং পরীক্ষিত কোভিড কেয়ার সেন্টারে (সরকারি ও বেসরকারি দুই) আইসোলেসন বা হোম কোয়ারান্টাইনের বিকল্প দেওয়া হবে। “যদি কোভিড পজিটিভ হয় তবে ক্লিনিকাল প্রোটোকল অনুযায়ী তাদের কোভিড কেয়ার সেন্টারে রাখা হবে। যদি নেগেটিভ হয় তবে যাত্রীকে বাড়িতে যেতে দেওয়া যেতে পারে, তাকে সেলফ আইসোলেশনে থাকতে হবে এবং আরও ৭ দিন তার স্বাস্থ্যের উপর নজরদারি রাখা হবে,” জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক।