কথা রাখলেন বাদশা, আর্থিক সাহায্য করলেন লোকশিল্পী রতন কাহারকে

কথা রাখলেন বাদশা, আর্থিক সাহায্য করলেন লোকশিল্পী রতন কাহারকে

সোশ্যাল মিডিয়া অনেক খারাপ দিক আছে। তবে কিছু ভাল দিকও রয়েছে। তারই উজ্বল নির্দশন সাম্প্রতিকতম ‘গেন্দা ফুল’ বিতর্ক। পঞ্জবি ব়্যাপার বাদশার এই গান মুক্তির পর থেকেই ঝড় তোলে নেটদুনিয়ায়। বাংলা লোকগানের সঙ্গে ব়্যাপারে ফিউশন, সঙ্গে মোহময়ী জ্যাকলিনের উপস্থিতি-আর কি চাই! কিন্তু শুরু থেকেই বিতর্কে জড়ায় এই গান।

বীরভূমের প্রত্যন্ত অঞ্চলের লোকশিল্পী রতন কাহারের লেখা ‘বড়লোকের বিটিলো’-কে এই গানে হুক লাইন হিসাবে ব্যবহার করা হলেও তাঁকে কোনওরকম ক্রেডিট দেওয়া হয়নি। এরপরই বাদশার বিরুদ্ধে গান চুরির অভিযোগ আনে নেটিজেনদের একাংশ।

সিউড়ির রতন কাহারের কথা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই পৌঁছে যায় বাদশার কানে। আগেই বাদশা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন সাধ্যমতো এই প্রবীণ শিল্পীর পাশে দাঁড়াবেন তিনি। রতন কাহারের আর্থিক দুরাবস্থার কথা জেনে তাঁকে ব্যক্তিগতভাবে আর্থিক সাহায্য করার কথাও জানিয়েছিলেন, আর যেমন কথা তেমনি কাজ। সোমবার লকডাউনের মাঝেই রতন কাহারকে আর্থিক সাহায্য পৌঁছে দিয়েছেন বাদশা।

সূত্রের খবর, রতন কাহারকে পাঁচ লক্ষ টাকা দিয়েছেন বাদশা।

নিউজ 18 বাংলা সূত্রে খবর, রবিবারই ভিডিয়ো কলের মাধ্যমে রতনবাবুর সঙ্গে কথা হয় বাদশার। লকডাউন পর্ব শেষে সিউড়ি এসে প্রবীন শিল্পীর সঙ্গে দেখা করার কথাও জানিয়েছেন বাদশা। একসঙ্গে গান গাওয়ারও ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন বাদশা।

দেশের অন্যতম জনপ্রিয় ব়্যাপারের এহেন আচরণে স্বভাবতই মুগ্ধ রতন কাহার। বাংলার শিল্পীরাও কোনওদিন দাম দেয়নি তাঁর। এর আগে একাধিকবার রতন কাহারের লেখা এই গান রেকর্ড করা হলেও কোনক্ষেত্রেই প্রাপ্য সম্মানিক বা সম্মান দুটো থেকেই বঞ্চিত থেকেছেন তিনি। জীবন সায়াহ্নে পৌঁছে এই সম্মানে আপ্লুত তিনি।

নেটাগরিকদের একাংশ বাদশার এই আচরণের প্রশংসা করেছেন। যদিও অনেকের মতেই অর্থ সাহায্য করলেও গানে ক্রেডিটটা বাদশা দিতে পারলেন কই? সেখানে তো ‘বড়লোকের বেটিলো’-র স্রষ্টা হিসাবে পৃথিবীর কাছে অজ্ঞাতই থেকে গেলেন সিউড়ির রতন কাহার!

Leave a Reply