৬৪তম মন কি বাত অনুষ্ঠানে কি বললেন প্রধানমন্ত্রী দেখুন এক নজরে

৬৪তম মন কি বাত অনুষ্ঠানে কি বললেন প্রধানমন্ত্রী দেখুন এক নজরে

এদিনের সম্প্রচার ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানের ৬৪তম। কোভিড-১৯ সংক্রমণের কারণে দেশের পরিস্থিতির ওপরই বেশি মনোনিবেশ করেছেন মোদি।
Maan ki baat today 31 may 2020
✓ ‘করোনার বিরুদ্ধে লড়াই চলছে জোরদার লড়াই। আগের থেকে পরিস্থিতির উন্নতি।’

✓ ‘অন্যান্য দেশের তুলনায় ভারতের মৃত্যুর হার কম। যা মৃত্যু হয়েছে, তার জন্য আমরা দুঃখিত।’

✓ ‘প্রত্যেক দেশবাসী একত্রে লড়ছেন। দেশবাসীর সঙ্কল্প শক্তি আর সেবা শক্তি কাজে দিয়েছে।’

✓ ‘এই পরিস্থিতিতে আরও বেশি সাবধান হওয়া দরকার। সেবায় নিজেদের নিয়োজিত করেছেন অসংখ্য মানুষ।’

✓ ‘বহু মানুষ নমো অ্যাপের মাধ্যমে অনেক কিছু জানাচ্ছেন। সঙ্কটের সময় দেশবাসীর উদ্ভাবনী শক্তির প্রশংসা প্রাপ্য।’

✓ ‘ধীরে ধীরে অর্থনীতি ফিরছে ছন্দে। দিনরাত কাজ করছেন রেল কর্মচারীরা। এই রেল কর্মচারীরাও করোনা যোদ্ধাদের সামনের সারিতে। গরিব-শ্রমিকদের উপর আঘাত সবচেয়ে বেশি। ’

✓ ‘পূর্ব ভারতের উন্নতিতে সবচেয়ে জোর। নেওয়া হচ্ছে একাধিক পদক্ষেপ।’

✓ ‘জেলা-রাজ্য-দেশকে আত্মনির্ভর করতে হবে। এই আত্মনির্ভরতা নিয়ে দেশজুড়ে আলোচনা শুরু হয়েছে।’

✓ ‘দেশীয় দ্রব্যের ব্যবহার বাড়ছে। বিদেশ থেকে রফতানির পরিমাণ কমছে।’

✓ ‘বিদেশের নেতারা আয়ুর্বেদ আর যোগ নিয়ে প্রশ্ন করছেন। বিদেশের মাটিতে এসবের জনপ্রিয়তা বাড়ছে। বিদেশ থেকে অনলাইন যোগ শেখার প্রবণতা বাড়ছে।’

✓ ‘আয়ুশ মন্ত্রালয় যোগ নিয়ে প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে। তিন মিনিটের ভিডিওতে আসন করে, এর উপকারিতা বলুন। সবাইকে এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে অনুরোধ করছি।’

✓ ‘আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পে ১ কোটি পরিবার উপকৃত হয়েছে। এর ফলে দেশবাসীর ১৪ হাজার কোটি টাকা সাশ্রয় হয়েছে।’

✓ ‘আমপানে ক্ষতিগ্রস্ত বাংলা-ওড়িশার অবস্থা দেখেছি। যে সাহসের সঙ্গে ঝড়ের মোকাবিলা হয়েছে, তা প্রশংসনীয়। ‘গোটা দেশ তাঁদের পাশে আছে।’

✓ ‘দেশের বড় অংশ পঙ্গপালের হানায় বিপর্যস্ত। সবাই মিলে একজোট হয়ে কৃষির ক্ষতি সামলে নেব। কৃষকদের আমরা সাহায্য করছি।’

✓ ‘করোনার ফলে দূষণ কমেছে। আমাদের বৃষ্টির জল ধরে রাখতে হবে। সাবেকি জল সংরক্ষণের উপায় গ্রহণ করতে হবে। চলতি বছরে জল সংরক্ষণ হোক সবচেয়ে জরুরি।’

✓ ‘বিশ্ব পরিবেশ দিবসে প্রকৃতির সেবা করুন, গাছ লাগান। গরম বাড়ছে, পাখিদের জন্য পাত্রে জল ভরে রাখুন।’

✓ ‘করোনার বিরুদ্ধে লড়াই এখনও অসম্ভব গুরুত্বপূর্ণ। ২ গজের পারস্পরিক ব্যবধান, মাস্ক এখনও গুরুত্বপূর্ণ।’

এই লকডাউনের সময়ে গরিব, পরিযায়ী ও দুর্গতদের সাহায্য করার আহ্বান জানান তিনি।